রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

 

প্রায় দেড় বছর পর খুলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা



ডেইলি ফেঞ্চুগঞ্জ ডটকম : বিদ্যালয়গুলো প্রায় দেড় বছর পরিত্যাক্ত ভুতুড়ে বাড়ির মতই পড়েছিল। না ছিল শিশু বা কিশোর-কিশোরীদের কোলাহল, না ছিল শিক্ষকদের পদচারনা। মহামারি করোনার ভয়াল থাবা প্রতিরোধে বন্ধ থাকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আজ রোববার থেকে আবার সরব হয়েছে। সীমিত পরিসরে হলেও শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার মধ্যে রাখতেই আপাতত এই ব্যবস্থা। আর দীর্ঘ বিরতি শেষে প্রিয় প্রতিষ্ঠানে ফেরার আনন্দে উচ্ছসিত শিক্ষার্থীরাও।

বাংলাদেশে করোনার ভয়ঙ্কর থাবা যখন চেপে বসে তখন ২০২০ সালের মার্চের মাঝামাঝিতে সবগুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। এরপর খুলছে খুলছে করে আর খোলা হয়নি।

পরিস্থিতি মোটামুটি ভাল হওয়ায় রোববার থেকে সরকার সারাদেশের স্কুল-কলেজসহ অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম শুরুর নির্দেশ দিয়েছে। এ লক্ষ্যে বেশ কয়েকদিন থেকে চূড়ান্ত প্রস্তুতিও গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

প্রস্তুতির মধ্যে রয়েছে শিক্ষার্থীদের দুটি করে মানসম্পন্ন মাস্ক সরবরাহ, হাত ধোয়া ও তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থা ইত্যাদি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে- সিলেট বিভাগের প্রায় সবগুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকেই করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠদানের উপযোগী করা হয়েছে। তাছাড়া সারাদেশের প্রায় ৯২ ভাগ শিক্ষককে ইতিমধ্যে করোনা ভ্যাক্সিনের আওতায়ও নিয়ে আসা হয়েছে। অন্যদেরও দ্রুত ভ্যাক্সিন দেয়া হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে- সিলেট বিভাগে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যাল, কলেজ এবং সরকারি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট শিক্ষার্থী ২৩ লাখ ৮৩ হাজার। এদের মধ্যে প্রাথমিক পর্যায়ের ১২ লাখ ৮৮ হাজার, মাধ্যমিক পর্যায়ে ৮ লাখ ১৮ হাজার, উচ্চ মাধ্যমিক ও কলেজে ২ লাখ ৫০ হাজার এবং সরকারি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল কলেজ মিলে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২৭ হাজার।

আর ৪ জেলা মিলিয়ে আছে ৫ হাজার ৪শ ৬১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৯৪২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ মাধ্যমিক এবং কলেজ রয়েছে ৩০৬টি।

উল্লেখ্য, আপাতত প্রতিদিন প্রাথমিকের সমাপনী, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের প্রতিদিন পাঠদান চলবে। আর তাদের সাথে থাকবে অন্য একটি শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা।

সংবাদটি শেয়ার করুন