রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

 

দীর্ঘদিন পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠদান শুরু, বালাগঞ্জে উচ্ছসিত শিক্ষার্থীরা



এস এম হেলাল : দীর্ঘদিন পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠদান শুরু হওয়ায় বালাগঞ্জে উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা। মহামারী করোনাভাইরাসের দুর্যোগে ৫শ ৪৪ দিন বন্ধ থাকার পর আজ রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে সারাদেশের মতো উপজেলার ৭২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১৫টি উচ্চ বিদ্যালয় এবং দু’টি কলেজে পাঠদান শুরু হওয়ায়- স্কুল, কলেজ সমুহ আবারও প্রাণ ফিরে পেয়েছে।

সকাল থেকে ক্লাসে অংশ নিতে আসা শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে যায় বিদ্যালয় প্রাঙ্গন। অনেক দিন পর সহপাঠী বন্ধুদের পেয়ে যেন মহাখুশি শিক্ষার্থীরা।

জানাগেছে- করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে ২০২০ সালের ১৭মার্চ থেকে সারাদেশে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় ছুটি ঘোষণা করা হয়।

এরপর পর্যায়ক্রমে ছুটি বাড়ানোর কারণে গত প্রায় দেড় বছর যাবত সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল।

সম্প্রতি সরকারি সিদ্ধান্তের পর আজ রোববার থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে এবং যথাযথ স্বাস্থ্য বিধি-মেনে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী পাঠদান শুরু করা হয়েছে।

আলাপকালে দেওয়ান আব্দুর রহিম হাইস্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মো. খলিলুর রহমান, বড়জমাত ছমিরুন নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জামাল আহমদ, শিওরখাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিনসহ কয়েকজন শিক্ষক জানান-দীর্ঘপ্রতিক্ষার পর পুরোপুরি স্বাস্থ্য বিধি ও সরকারী নির্দেশনা মেনে তাদের প্রতিষ্ঠানে পাঠদানের শুরু হয়েছে।

শিক্ষার্থী-শিক্ষক এবং অভিভাবকরাও আনন্দিত।
শিক্ষার্থী বশির উদ্দিন খান আজিম, শাহ মো. শাহরিয়ার হাসান জানান- অনেকদিন পর স্কুল খুলেছে আমাদের খুব খুশি লাগছে।

বালাগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রকিব ভূইয়া বলেন- উপজেলার ৭২টি বিদ্যালয়ে আজ ৫ম শ্রেণী ও ৩য় শ্রেণীর ক্লাস হয়েছে। ৫ম শ্রেণীর ৮৫ভাগ এবং ৩য় শ্রেণীতে ৭৩ ভাগ শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়েছে। আশাকরি শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির সংখ্যা আরোও বাড়বে।

বালাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার রোজিনা আক্তার বলেন- মহামারী করোনাভাইরাসের দুর্যোগের কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকারপর খুলে দেওয়ার হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

বালাগঞ্জ ডিএন মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, তয়রুননেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়সহ কয়েকটি বিদ্যালয় পরিদর্শন করেছি, শিক্ষার্থীদের উপস্থিত
সন্তোষজনক। শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে ইতিমধ্যে কঠোর নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। পাশাপাশি অভিভাবকরাও যথাযথ দায়িত্ব সচেষ্ট থাকবেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন