সোমবার, ২৩ নভেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মনির আহমদ একাডেমি শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে জোর করে বেতন নিচ্ছে!



ডেইলি ফেঞ্চুগঞ্জ ডটকম : করোনা কালীন বিদ্যালয় বন্ধ থাকলেও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ছয় মাসের বেতন আদায় করেছে দক্ষিণ সুরমার মনির আহমদ একাডেমি কর্তৃপক্ষ। সেই সঙ্গে রেজিট্রেশন ফি’র নামে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেওয়া হচ্ছে বাড়তি অর্থ।

বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জোরপূর্বক বেতন আদায় করার বিষয়টি অস্বীকার করে স্বেচ্ছায় অভিভাবকরা দিচ্ছে দাবি করলেও অভিভাবকদের দাবি বেতন দিতে বাধ্য করা হচ্ছে তাদের। অভিযোগ রয়েছে, কর্তৃপক্ষ এমন হুমকি দিচ্ছে মাসিক বেতন না দিলে ৯ম শ্রেণির রেজিষ্ট্রেশন হবে না।

কয়েকজন অভিভাবক জানান, বিদ্যালয় থেকে তাদের মার্চ মাস থেকে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত সকল বেতন পরিশোধ করার জন্য বলা হয়েছে। যারা পরিশোধ না করবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানিয়েছেন।

অভিভাবকদের অভিযোগ করোনার সময় মাত্র দু’মাস অনলাইনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নিয়েছেন একাডেমির শিক্ষকগণ। যদিও যথাযথ নিয়ম না মেনে অনলাইন ক্লাস করানো হয়।

মনির আহমদ একাডেমির প্রধান শিক্ষক উজ্জল কুমার সাহা বলেন- প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের বেতন শিক্ষার্থীদের বেতনের উপর নির্ভশীল। তাই সকল শিক্ষার্থীকে বেতন পরিশোধ করতে হবে। যারা বেতনের জন্য অভিযোগ করেছেন ইতিমধ্যেই তাদের ছেলে-মেয়েদের ৪০% বেতন মওকুফ করা হয়েছে। একাডেমি কর্তৃপক্ষ দাউদপুর এলাকার প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য ৬০% বেতন নিয়ে থাকে।

দক্ষিণ সুরমা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সত্য ব্রত রায় আলাপ কালে জানান- প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানের বেতনে বিষয়টি অভিভাবক ও একাডেমি কর্তৃপক্ষের মধ্যে সমন্বয় করে আদায় করতে হবে। এরপরও যদি অভিভাবকদের কোন অভিযোগ থাকে তবে তিনি দক্ষিণ সুরমা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবগত করার জন্য বলেন।

তথ্যসূত্রঃ সিলেট আমার সিলেট

সংবাদটি শেয়ার করুন