বুধবার, ৩ মার্চ ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘রায়হানের গায়ের জামাও পাল্টে দেওয়া হয়েছিল’!



ডেইলি ফেঞ্চুগঞ্জ ডটকম : বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে মারা যাওয়া রায়হানের গায়ের জামাও পাল্টে দেওয়া হয়েছিল। মর্গে গিয়ে নিহত ছেলের গায়ে অন্য জামা দেখে তখনই প্রশ্ন তুলেছিলেন তার মা সালমা বেগম। গতকাল শুক্রবার তিনি এ কথা বলেন।

রায়হানের মা সালমা বেগম বলেন- মারতে মারতে ফাঁড়িতেই মেরে ফেলা হয়েছে রায়হানকে। পোশাক বদল করে হয়তো বেওয়ারিশ লাশ বানানোর কোনো কারসাজি থাকতে পারে। ফাঁড়িতেই যখন ঘটনা ঘটেছে, তখন তো কোনো পাবলিক জড়িত নয়। সবাই ফাঁড়ির পুলিশ। তাদের কয়েকজনকে আমি মর্গে দেখে গালিও দিয়েছি। বলেছি, আমার ছেলের পরনে এই শার্ট-প্যান্ট বদল করে লাশটা বেওয়ারিশ বানানোর চেষ্টা করা হয়েছে। এগুলো আমি রেখে দিয়েছি। তদন্ত করলে এখান থেকে অনেক কিছু বের হতে পারে।

হত্যার পর ঘটনা ধামাচাপা দিতে রায়হানকে ছিনতাইকারী দাবি করে পুলিশ অপপ্রচার চালিয়েছে জানিয়ে সালমা বেগম বলেন, পুলিশ ঘটনা ধামাচাপা দিতে এসব মিথ্যা বলেছে। পুলিশকে আমরা রক্ষক বলি। রক্ষকরাই ভক্ষণ করল আমার রায়হানকে। ময়নাতদন্তে রায়হানের দেহে ১১১টি আঘাতের চিহ্ন পেয়েছেন চিকিৎসকরা। তার হাতের নকও উপড়ানো ছিল।

রায়হানকে নির্যাতনের ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত হিসেবে আলোচিত হচ্ছে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির বহিষ্কৃত ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূইয়ার নাম। তবে সালমা বেগম মনে করেন, শুধু আকবর নয়, এই ঘটনার সঙ্গে আরও অনেকে জড়িত আছে। আকবরসহ কয়েকজন অভিযুক্ত শনাক্ত হওয়ার পরও গ্রেপ্তার না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন