বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

অবশেষে ফেঞ্চুগঞ্জে ভূয়া ছিনতাই নাটকের অবসান!



আবুল ফয়েজ খান কামাল :: ফেঞ্চুগঞ্জে ভুয়া ছিনতাই নাটক সাজাতে গিয়ে নিজের জালে নিজেই ধরা পরেছেন পুলিশের হাতে পিতা পুত্র।

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গিয়ে পিতা পুত্র মিলে মিথ্যা ছিনতাই নাটক সাজিয়ে ছিলেন। ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার ৩ নং ঘিলাছড়া ইউনিয়নের যুধিষ্ঠপুরের পােস্ট মাস্টার আমজাদ হােসেনের পুত্র ডাকপিয়ন মােমিন হােসেন ৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৬:৩০ মিনিটের সময় নিজ এলাকায় ছিনতাইয়ের শিকার হন।

ছিনতাইকারীরা মােমিনের কাছ থেকে তিরিশটি রেজিস্ট্রারী চিঠি, নগদ এক লক্ষ বিশ হাজার টাকা, কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক ও মােমিনের পঞ্চান্ন হাজার টাকার দামের সামসাং এ ৫০ মােবাইল নিয়ে যায়।

উল্লেখ করে স্থানীয় কয়েকজনের নামে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন পােস্ট মাস্টার আমজাদ হােসেন (৫১)।

অভিযােগ পেয়ে মালামাল উদ্ধারের জন্য পুলিশ নিয়ে অভিযানে নামেন ফেঞ্চুগঞ্জ থানার ওসি আবুল বাশার মােঃ বদরুজ্জামান। রাতে পুলিশ টিমকে বিভিন্ন বাড়ীতে নিয়ে যায় ডাক পিয়ন মােমিন হােসেন (২৫)। মােমিনের আচরণ সন্দেহজনক মনে হলে মােমিনকেই পর্যবেক্ষন করতে থাকেন ওসি। এক পর্যায়ে বেড়িয়ে আসে আসল রহস্য।

জিজ্ঞাসাবাদে ডাক পিয়ন মােমিন হােসেন স্বীকার করে প্রতিবেশি দশ বছরের এক শিশুর সাথে তার কথা কাটাকাটি হয়। মােমিন ঐ শিশুকে চড়থাপ্পড় মারে। এ নিয়ে ঐ শিশুর অভিভাবকদের সাথে ঝগড়া হয় পিতা পুত্রের। প্রতিশােধ নেয়ার জন্য পিতা পুত্র মিলে সরকারি মালামাল ছিনতাইয়ের ঘটনা সাজান। ফেঞ্চুগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল বাশার মােঃ বদরুজ্জামান বলেন- পােস্ট মাস্টার আমজাদ হােসেন ও তার ছেলে ডাক পিয়ন মােমিন হােসেন সরকারি মালামাল ছিনতাইয়ের মিথ্যা নাটক সাজিয়েছিল কিন্তু পুলিশের চোখকে তারা ফাকি দিতে পারেনি।

মিথ্যা অভিযােগ দায়ের করে নিরীহ জনসাধারণ ও পুলিশকে হয়রানির দায়ে আইন মােতাবেক তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। পুলিশের বিচক্ষণতায় মিথ্যা অভিযােগ থেকে সাধারণ পরিবারগুলাে রক্ষা পাওয়ায় ফেঞ্চুগঞ্জ থানা পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন স্থানীয় জনতা।

সংবাদটি শেয়ার করুন